জিরো ফিগার ম্যানিয়া : এখন ওজন ১৮ কিলোগ্রাম

0

জিরো ফিগার করার জন্য ডায়েট করছেন? খুব সাবধান অচিরেই শরীরে বাসা বাঁধতে পারে এই মারণ রোগ। যার খেসারত গুনছেন ৩৭ বছর বয়সী এক নারী মডেল। যার ওজন এখন ১৮ কিলোগ্রাম।

কঙ্কালসার শরীরটি ধীরে ধীরে ঢলে পড়ছে মৃত্যুর কোলে। বাঁচার শেষ আশায় সোশ্যাল মিডিয়ায় চিকিৎসার জন্য অর্থ সাহায্য চেয়েছেন।

ক্যালিফোর্নিয়ার বাসিন্দা রাচায়েল ফারকের শেষ আর্তি, ‘আমার নাম রাচায়েল। আমি আপনার সাহায্য চাই। আপনার সাহায্য আমাদের খুব প্রয়োজন।’

দেখলে চমকে উঠতে হয়। জীবন্ত কঙ্কাল। কারো সাহায্য ছাড়া দাঁড়াতে পারেন না। শুতে গেলে হাড় বিঁধে শরীরে অসহ্য যন্ত্রণা। কিছু মুখে দিলেই বমি। শরীরের প্রত্যেকটি হাড় গোনা যায়। হৃদস্পন্দন বাইরে থেকে দেখা যায়। কয়েক বছর আগেও অভিনয় ও মডেলিংই ছিল রাচায়েলের পেশা। শরীরে যাতে একটুও মেদ না থাকে, তাই শুরু করেছিলেন ডায়েট। খাওয়া প্রায় ছেড়েই দিয়েছিলেন।

রাচায়েলের আগের অবস্থা

এই না খাওয়াই শেষ পর্যন্ত কাল হল রাচায়েলের জীবনে। এক দশকেরও বেশি সময় অতিবাহিত। দিনের পর দিনের পর না খেয়ে, এখন আর কিছু খেতেই পারেন না প্রাক্তন এই অভিনেত্রী। ফলে বর্তমানে তিনি অ্যানোরেক্সিয়া রোগে আক্রান্ত। শরীরের ওজন এতটাই কম যে, দেশের কোনো হাসপাতাল ভর্তি নিতে চাইছে না রাচায়েলকে। ন্যূনতম চিকিৎসা নেয়ার মতোও শক্তি নেই শরীরে। যেকোনো সময় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়বেন।

চিকিৎসকরা জানিয়ে দিয়েছেন, না খেয়ে রাচায়েলের কিডনি, লিভার প্রায় নষ্ট হয়ে গেছে। হার্টের অবস্থাও শোচনীয়। যেকোনো সময় স্পন্দন বন্ধ হয়ে যেতে পারে। চিকিৎসার বিপুল খরচ জোগাতে সোশ্যাল মিডিয়ায় আবেদনের পাশাপাশি GoFundMe নামে একটি পেজও তৈরি করেছেন রাচায়েল ও তার স্বামী। সেই পেজেই বিশ্ববাসীর কাছে তাদের আর্জি, কিছু অর্থ সাহায্য করে অন্তত জীবনটা বাঁচাতে।

অ্যানোরেক্সিয়া কী?

চিকিৎসার পরিভাষায় এই রোগের পুরোনাম অ্যানোরেক্সিয়া নার্ভোসা। ইটিং ডিজঅর্ডার। শুধু রাচায়েলই নয়। বিশ্বে বহু মডেল ও অভিনেত্রীর এই মারণরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে। এখনো অনেকেই কোনো রকম বেঁচে রয়েছেন।

চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, অতিমাত্রায় ডায়েট থেকেই অ্যানোরেক্সিয়া হয়। ডায়েট করতে করতে একসময় মানসিকভাবেই এমন এক পর্যায় আসে, তখন আর কিছুই খেতে ইচ্ছে করে না। খিদে পায়ও না। খাদ্যনালী শুকিয়ে যায়। খাবার পড়লেই বমি হয়ে যায়। ২০১৩-তেই গোটা পৃথিবীতে এই রোগে মৃত্যু হয়েছে ৬০০ জনের।

অ্যানোরেক্সিক মডেলদের র‌্যাম্পওয়াক বন্ধ করতে দুনিয়ার বহু স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন প্রতিবাদে সোচ্চার। কিন্তু তা সত্ত্বেও ক্যারিয়ারকে উন্নতির শিখরে নিয়ে যেতে বহু মডেল ও অভিনেত্রীই অতিমাত্রায় ডায়েট করে, কার্যত না খেয়ে অ্যানোরেক্সিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছেন প্রতি বছর।

কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির ইটিং ডিসঅর্ডার বিশেষজ্ঞ টিম ওয়ালসের কথায়, ‘ফারকের অবস্থা খুবই আশঙ্কাজনক। কিছু চিকিত্‍সা রয়েছে এই অবস্থা থেকে তাকে ফিরিয়ে আনার। তবে রাচায়েলের ক্ষেত্রে ওই চিকিৎসা কতটা কার্যকর হবে, তা বোঝা যাচ্ছে না।’

 

Share.

Leave A Reply