পৃথিবীজুড়ে শিশুদের স্কুলে যাওয়ার বিপজ্জনক,দুর্গম ও ভয়ংকর সব রাস্তার গল্প ও ছবি !

0

এমন অনেক দেশ আছে, যেখানে শিক্ষার আলো পেতে শিশুদের অনেক দুর্গম পথ পার হতে হয়৷ পাহাড়ে উঠে, পানিতে ভিজে, ঝুলন্ত সেতু পেরিয়ে, বিপজ্জনক সব রাস্তা দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে স্কুলে যায় তারা। তেমনই কিছু ছবি ও ছবির গল্প ডি ডব্লিউ এর সৌজন্যে ।

somoyerkonthosor collection

৮০০ মিটার উঁচু খাড়া পাহাড় পেরিয়ে স্কুলে…

চীনের সিচুয়ান প্রদেশের লিয়াংশান জেলার একটি পাহাড়ি গ্রাম আটুলের৷ সেখানকার এই রাস্তাটাই হচ্ছে শিশুদের স্কুলে যাওয়ার জন্য বিশ্বের সবচেয়ে দুর্গম পথ৷ প্রতিদিন ছোট্ট ছোট্ট শিশুদের এই পথ দিয়ে পাহাড়ে উঠে বহু কষ্টে যেমন করে স্কুলে যেতে হয়, তেমনি ফিরতেও হয় ঐ একই পথ ধরে৷

somoyerkonthosor-collection

নীচে তাকালেই বিপদ!

ঝুলন্ত দড়ির মই বেয়ে প্রতিদিন ৯০ মিনিট ধরে স্কুলে যেতে হয় এই শিশুদের৷ শিশুদের জন্য এভাবে পথ চলা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ৷ এর জন্য এ অঞ্চলে আগে অনেক দুর্ঘটনা ঘটেছে, মারাও গেছে অনেকে৷ তবে আশার কথা, এতদিনে সিচুয়ান প্রদেশের টনক নড়েছে৷ শোনা যাচ্ছে শীঘ্রই এখানে একটি পাতের সিঁড়ি তৈরি করা হবে।
somoyerkonthosor-collection
কাঠের রাস্তা

দক্ষিণ চীনের প্রত্যন্ত অঞ্চল গুয়াংশির একটি গ্রামের শিশুদের স্কুলে যাওয়ার জন্য রোজ নংইয়ং পর্যন্ত যেতে হয়৷ এর জন্য প্রতিদিন দুই ঘণ্টা কাঠের সিঁড়ি বেয়ে পাহাড়ে উঠতে হয় তাদের৷ শুধু তাই নয়, কাঠের এই সিঁড়িগুলোতে কোনো রেলিং পর্যন্ত নেই!

somoyerkonthosor-collection

তারের সেতু

ইন্দোনেশিয়ার লেবাক অঞ্চলের শিশুদের স্কুলে যেতে হলে একসময় তারের এই ঝুলন্ত সেতুটির ওপর দিয়ে যেতে হতো৷ নীচেই নদী, তাই এ পথও ছিল যথেষ্ট দুর্গম। এখন অবশ্য এখানে নতুন রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছে ।

somoyerkonthosor-collection

ভেলায় চড়ে স্কুলে যাওয়া

শুনলেই রোমাঞ্চকর মনে হতে পারে৷ কিন্তু ফিলিপাইন্সের একটি প্রত্যন্ত অঞ্চলের শিশুদের এমনটা প্রতিদিন করতে হয় প্রয়োজনে, সাধ করে নয়৷ হ্যাঁ, গ্রাম থেকে রিজাল প্রদেশে যেতে ভেলায় চড়ে রোজ নদী পার হতে হয় তাদের৷ সেখানেই রয়েছে এলাকার একমাত্র স্কুলটি। তাই লাখো শিশু এভাবেই ভেসে ভেসে স্কুলে যায় প্রতিদিন।

somoyerkonthosor-23

শিক্ষার আলো পেতে যেখানে ২২ কিঃ মিঃ পাহাড়ে উঠতে হয় !

মরক্কোয় স্কুলে যাওার এই রাস্তাটা চীনের সিচুয়ান প্রদেশের লিয়াংশান জেলার মতো এতটা ঝুঁকিপূর্ণ না হলেও, কষ্টকর বটে৷ জাহিরা নামের ছোট্ট এই মেয়েটিকে স্কুলে যাতায়াতের জন্য প্রতিদিনই অন্তত চার ঘণ্টা পাথর বিছানো এই উঁচু-নীচু পথে হাঁটতে হয়, তাও আবার দীর্ঘ ২২ কিলোমিটার।

somoyerkonthosor-collection

Share.

Leave A Reply