শিশুদের কৃমির সমস্যায় করণীয় কি কি ?

0
আমাদের শিশুদের জটিল সমস্যাগুলির মধ্যে একটি হলো কৃমির সমস্যা। শিশুদের পুষ্টিহীনতার জন্য কৃমি অনেকাংশে দায়ী। বিভিন্ন কারনে শিশুর কৃমির সমস্যা হতে পারে যেমন- নিরাপদ ও বিশুদ্ধ পানির অভাব, অপরিচ্ছন্নতা, খাওয়ার আগে হাত না পরিষ্কার করা ও খালি পায়ে হাঁটা ইত্যাদি।
 এর জন্য প্রতি বছর সরকারীভাবে আমাদের দেশের সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশুদের জন্য কৃমি নিয়ন্ত্রণ সপ্তাহ পালন করা হচ্ছে। শিশুর কৃমি সমস্যার কারনে রক্তশূন্যতা, অ্যালার্জিসহ বিভিন্ন ধরনের রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে, শুধু তাই নয়, তাদের বেড়ে ওঠা এবং সুস্বাস্থ্য ব্যাহত হয়।
কীভাবে বুঝবেন কৃমির সংক্রমণ :-
বিভিন্ন প্রকারের কৃমি শিশুদের শরীরে নানান বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করে থাকে। শিশুদের কৃমির প্রধান লক্ষণগুলোর মধ্যে রয়েছে :- আয়রনের ঘাটতি, বৃদ্ধি ব্যাহত হওয়া, খাওয়ার অরুচি, রক্তশূন্যতার জন্য দুর্বলতা, পেট ফাঁপা, অপুষ্টিতে ভোগা এবং ডায়রিয়া। কৃমির কারণে চুলকানি, অ্যালার্জি, শ্বাসকষ্ট এমন কি কাশিও হতে পারে।
 এছাড়া বিভিন্ন ধরনের কৃমি বিশেষ করে গোল কৃমি পিত্তথলি, অগ্ন্যাশয় ও অ্যাপেনডিক্সে অবস্থান নিয়ে সংক্রমণ ঘটায় ও তীব্র ব্যথার অনুভূতি সৃষ্টি করে। শরীরের নানা অঙ্গে কৃমি মরে গিয়ে স্টোন জমার উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করে। কিছু কৃমি লিভারেরও ক্ষতি করে। চোখের ক্ষতি করে লোয়া লোয়া। কৃমির কারণে শরীরে ভিটামিন ‘এ’ কম শোষিত হয়, ফলে ভিটামিন ‘এ’র অভাবজনিত বিভিন্ন সমস্যা যেমন :- ত্বক, অন্ত্রের অ্যাপিথেলিয়াম ও চোখের ক্ষতি হয়। প্রচুরসংখ্যক কৃমি একসঙ্গে জমাট বেঁধে অন্ত্রের নালি বন্ধ করে দিতে পারে।

কৃমি সম্পর্কে ভ্রান্ত ধারণা

 অনেকের ধারণা পেটে ২-১ টা কৃমি থাকা ভাল। এ ধারণাটি মোটেই ঠিক নয়। কৃমি শরীরের কোন উপকার করে না বরং ক্ষতিই করে। কৃমি হজমে সাহায্য করে বলে মনে করেন অনেকে। এটিও একটি ভ্রান্ত ধারণা। কৃমি হজমে সাহায্য না করে উল্টো বদ-হজম, অজীর্ণ, ক্ষুধামান্দ্য ও পেটের পীড়ার সৃষ্টি করে।
 মিষ্টি খেলে কৃমি হয় এমন কথাও বলেন কেউ কেউ। মিষ্টি খাওয়ার সঙ্গে কৃমি হওয়ার ব্যাপারটি কোনভাবেই যুক্ত নয়। নোংরা, ময়লা পরিবেশ, সেতসেঁতে মাটি হচ্ছে কৃমির জন্য আরামপ্রদ আবাসস্থল, যেখানে কৃমির ডিম ও বাচ্চা থাকে। সেসব নোংরা স্থানে চলাফেরা করলে কৃমি পায়ের তালু ভেদ করে শরীরে ঢুকে পড়ে। এ ছাড়া নোংরা স্থানের মাটি ও ময়লা হাত দিয়ে স্পর্শ করলে অসবাধানতা ও অপরিচ্ছন্নতার সুযোগে তা নখ দিয়ে শরীরে ঢুকে পড়তে পারে। এছাড়া নোংরা পানিতেও কৃমির ডিম বা বাচ্চা থাকতে পারে। দূষিত পানি পান করার কারণেও কৃমি শরীরে ঢুকে পড়ে।

 শিশুকে কৃমি থেকে রক্ষার্থে যা যা করবেন

  • সব সময় পরিষ্কার-পরিছন্ন থাকতে হবে।
  • জন্মের পর প্রথম পাঁচ মাস বয়স পর্যন্ত শুধুমাত্র শিশুদের বুকের দুধ খাওয়ানো । এ সময়ে অন্য কোন খাবার বা পানীয়ের প্রয়োজন নেই।
  • পাঁচ মাস বয়স হলে মায়ের দুধের পাশাপাশি পরিবারের অন্য খাবারাদি স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে তৈরি করে শিশুদের খেতে দেয়া।
  • খাবার তৈরির পূর্বে এবং খাবার দেয়ার পরে ভাল করে সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে নিতে হবে।
  • খাবার ভাল করে সিদ্ধ করে পরিষ্কার পাত্রে রাখতে হবে।
  • সব সময় কাচা ফলমূল খাওয়ার আগে তা পরিষ্কার করে খাওয়া শিক্ষাতে হবে।
  • পরিষ্কার ও নিরাপদ পানির ব্যবহার খাবার ধোয়া, মোছা, রান্না ইত্যাদি কাজে ব্যবহার ও সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে। এসব ক্ষেত্রে কখনওই দূষিত পানি ব্যবহার করা যাবে না।
  • পরিবারের প্রত্যেক সদস্যকে মল ত্যাগের পর, খাবার তৈরি ও পরিবেশনের আগে ও খাবার গ্রহণের আগে ভাল করে সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে।
  • সেনিটারি ল্যাট্রিনের ব্যবহার এবং স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে পয়ঃনিষ্কাশন পদ্ধতি গড়ে তুলতে হবে।
  • নিয়মিত পায়খানা ব্যাবহারের পর হাত পা পরিষ্কার করেনিতে হবে।
  • খালিপায়ে হাঁটার অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে।
  • ব্যক্তিগত পর্যায়ে স্বাস্থ্য সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে।

চিকিৎসা

দু’বছর পর থেকে সবার জন্য কৃমির ওষুধের ডোজ একই অর্থাৎ আপনি যে পরিমাণ ওষুধ খাবেন, আপনার আড়াই বছরের শিশুও একই পরিমাণ ওষুধ খাবে। তাই এ নিয়ে বিভ্রান্ত হবেন না। বাড়ির সবার একসঙ্গে কৃমির ওষুধ খাওয়া উচিত, এতে কৃমি থেকে সহজে রক্ষা পাওয়া যায়। সুস্থ মানুষ বা শিশুরা যদি চার থেকে পাঁচ মাস পর পর কৃমির ওষুধ খান, তবে কোনো ক্ষতি হয় না। আজকাল দুই বছরের কম বয়সের শিশুদেরও কৃমির ওষুধ খাওয়ানো যায়, তবে তার আগে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

বিঃ দ্রঃ মজার মজার রেসিপি ও টিপস, রেগুলার আপনার ফেসবুক টাইমলাইনে পেতে লাইক দিন আমাদের ফ্যান পেজ বিডি রান্নাঘরে।

Share.

Leave A Reply