একটি শিক্ষণীয় গল্প, পড়ুন আশা করি ভাল লাগবে

0

অপূর্ব সুন্দরী এক নারী এসে এক কৃষককে বললো, আমি তোমাকে বিয়ে করবো। কৃষক তো তার কথা শুনে আর সৌন্দর্য দেখে পাগল হয়ে গেল। এক মুহূর্তও দেরি না করে নারীটিকে নিয়ে সোজা চলে গেলো কাজীর কাছে। কাজীকে বললো, তাড়াতাড়ি আমাদের বিয়ে দিয়ে দাও।

কাজী সেই নারীর দিকে এক পলক তাকালো। রূপ- সৌন্দর্য দেখে সেও পাগল হয়ে গেলো। কৃষকের দিকে তাকিয়ে বললো, আরে বেটা কৃষক, তুই তো এই নারীর উপযুক্তই না। আমিই বিয়ে করবো।

এ কথায় কাজী আর কৃষকের মধ্যে লেগে গেল প্রচণ্ড ঝগড়া। এক পর্যায়ে ক্লান্ত হয়ে পড়া কৃষক আর কাজী বিচার নিয়ে গেল বাদশাহের দরবারে। বাদশাহও একবার তাকালেন নারীটির দিকে। এবার বাদ থাকলেন না বাদশাহও। পাগলপ্রায় হয়ে বাদশাহ রেগে গিয়ে কাজী আর কৃষককে বললেন, তোরা তো দুজনেই এই নারীর অযোগ্য। আমিই বিয়ে করবো।

ত্রিমুখী সমস্যায় হাবুডুবু খেতে খেতে কৃষক, কাজী আর বাদশাহ মিলে নারীকে বললেন, তুমিই সিদ্ধান্ত দাও কাকে বিয়ে করবে? এবার মুখ খুললো নারী। সিদ্ধান্ত জানিয়ে বললো, ‘যে আমাকে দৌড়ে ধরতে পারবে, আমি তাকেই বিয়ে করবো।’

একথা বলেই দৌড়াতে শুরু করলো অপরূপ নারীটি। পিছে পিছে ছুটলেন কৃষক, কাজী আর বাদশাহ। দৌড়াতে দৌড়াতে এক সময় ছটফট করতে করতে মারা গেল কৃষকটি। এরপর কিছুদূর যাওয়ার পর একইভাবে মারা গেল কাজীটিও।

বাদশাহ এবার নারীকে একা পেয়ে বললেন, ‘এখন তো আমি একা। চলো বিয়ে করি।’ একথা শুনে হাসলো নারীটি। বললো, ‘না, এভাবে নয়, আমাকে দৌড়ে ধরতে হবে। তবেই বিয়ে হবে।’ তখন বাদশাহ বললেন, হে নারী দাঁড়াও, বল, আসলে তুমি কে?

এবার নারী বললো, ‘আমি হলাম মোহ। আমার মধ্য আছে শুধু চাকচিক্য, লোভ-লালসা। আমার পিছে যে দৌঁড়াবে সে শুধু এভাবেই মরবে। বিনিময়ে কিছুই পাবে না।’ (সংগৃহীত)

ইউটিউবে আমাদের রান্নার সব ভিডিও দেখতে আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুণ

Share.

Leave A Reply