নানা রকম সুস্বাদু চা এবং তাদের স্বাস্থ্যগুণ সম্পর্কে জেনে নিন।

0

‘এক কাপ চা’ আমাদের প্রতিদিনের সঙ্গী। সকাল ও বিকালের নাস্তায় এক কাপ চা না হলে যেন চলেই না। পৃথিবীতে নানা দেশের খাবারের ধরনে নানা পার্থক্য থাকলেও এই চা সবদেশেই জনপ্রিয়, প্রায় প্রতিটি দেশেই চাপ্রেমী মানুষ আছে। এই চায়ের উৎপত্তি চীন থেকে, চা গাছ  থেকে চা পাতা পাওয়া যায়। চা গাছের  বৈজ্ঞানিক নাম “ক্যামেলিয়া সিনেনসিস”। চা পাতা কার্যত চা গাছের পাতা, পর্বও মুকুলের একটি কৃষিজাত পণ্য যা বিভিন্ন উপায়ে প্রস্তুত করা হয়।

বর্তমানে বিভিন্ন ধরণের চা পাওয়া যায়। নানা স্বাদের এই চা যেমন আমাদের নানা স্বাদে মাতিয়ে তোলে তেমনি এর আছে অসাধারণ স্বাস্থ্যগুন।

(১) ব্ল্যাক টি

সাধারণ চা পাতা থেকে এটি তৈরি করা হয়। নাম কালো চা হলেও এটির রঙ হয় লাল। লাল চা আর কালো চায়ের মধ্যে পার্থক্য এতটুকুই লাল চা স্বাদে কিছুটা ধোঁয়াটে গন্ধযুক্ত হয়ে থাকে।

(২) গ্রীন টি

এটিও বেশ জনপ্রিয়। বাজারে গ্রীন টি অত্যন্ত সহজলভ্য। গ্রীন টি আপনার ত্বক পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে। এটি সুন্দর স্বাস্থ্য গঠনেও সাহায্য করে।

(৩) লেবু চা

লেবু চা ওজন কমাতে অসাধারণ কার্যকরী। কালো চা বা লিকার চায়ের তুলনায় পুষ্টিগুনে এটি বেশি উপকারী। এর রেসিপিতে আপনাকে লিকার চা তৈরি করে পরিবেশনের সময় পরিমানমত লেবুর রস মিলিয়ে দিলেই হবে। কিন্তু বেশিক্ষন লেবু চুবিয়ে রাখলে চায়ে তেঁতো স্বাদ চলে আসতে পারে।

(৪) আদা চা

সাধারণ সর্দি, মাথা ব্যথা, গলা ব্যথায় আদা চায়ের উপকারিতা আমরা প্রায় সবাই জানি। গরম এক কাপ চা জাদুর মত মাথা ব্যথা সারাতে সাহায্য করে। এর রেসিপিতে আপনাকে পানি গরম করার সময় আদা টুকরা করে দিয়ে কিছুক্ষন জ্বাল দিতে হবে। এরপর চা পাতা ও চিনি দিয়ে নামিয়ে নিতে হবে। এছাড়া চা বানিয়ে তাতেও আদার কিছুটা রস মিশিয়ে চা পান করা যায়।

(৫) তুলসি চা

অসাধারণ উপকারী এই তুলসি চা সর্দিজনিত মাথা ব্যাথা, কাশি, সর্দি জ্বর ও ঠান্ডা লাগা দূর করে।এটি দুশ্চিন্তা থেকে রক্ষা পেতেও সাহায্য করে। ২ থেকে ৩ কাপ পানিতে ৫/৬ টি তুলসি পাতা ফুটতে দিন। পানি ফুটে ১ কাপ পরিমাণ হয়ে এলে তা নামিয়ে গরম গরম পান করুন যন্ত্রণার উপশম হবে। এটি অ্যাসিডিটি  নিরাময়ে অনেক জনপ্রিয়। তাছাড়া নিয়মিত তুলসি চা পানে হাপানি বা এ্যাজমা রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। তুলসি চা প্যাকেটে বাজারে কিনতেও পাওয়া যায়।

(৬) পুদিনা চা

পুদিনা চা পেটের বাড়তি মেদ কমাতে সাহায্য করে। পুদিনা চা বানাতে তাজা অথবা শুকনো দু’রকম পাতাই ব্যবহার করা যায়। ২ কাপ পানি, দেড় কাপ তাজা পাতা অথবা ১ চা চামচ শুকনো পাতা, স্বাদের জন্য চিনি, মধু ও লেবু দেয়া যেতে পারে। পানি ফুটিয়ে পান করার ২-৩ মিনিট আগে গরম পানিতে পাতা দিয়ে রেখে দিতে হবে নির্যাস বের হবার জন্য।

পরিমিত পরিমাণ চা পান দেহের জন্য উপকারী কিন্তু অতিরিক্ত চা পানের অভ্যাস থাকলে স্বাস্থ্যের ক্ষতি হবার সম্ভাবনা থাকে।

ছবি – টেস্টঅবথেরাপি ডট কম

লিখেছেন –  সারাহ

Share.

Leave A Reply