ইয়োগা কি? এটা কেন করবেন এবং কিভাবে করবেন জেনে নিন এই পোস্টে……….।

0

ইয়োগা বা যোগব্যায়াম একটি শাস্ত্রীয় কৌশল। যা পাঁচ হাজার বছরেরও পুরনো। প্রাচীন  ভারতীয় উপমহাদেশের মুনি ঋষিরা তাদের স্বাস্থ্য ঠিক রাখা এবং দীর্ঘজীবনের জন্য বিভিন্ন কলা-কৌশল আবিষ্কার বা আয়ত্ত করেন। প্রায় ৪০০ বছর আগে সর্বপ্রথম ঋষি পতঞ্জলি কিছু আসনের কথা বলেন এবং এগুলো মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেন। পরে ধীরে ধীরে এই কলাকৌশল ছড়িয়ে পড়ে পৃথিবীর সর্বত্র। উনবিংশ ও বিংশ শতাব্দীর দিকে বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন ভাষায় ‘পতঞ্জলিআসনা’ নামে গ্রন্থটি ছড়িয়ে পড়ে। পরবর্তীতে আরো অনেকেই যোগব্যায়াম এর ওপর বেশকিছু গ্রন্থ রচনা করেন।

‘ইয়োগা’ শব্দের আক্ষরিক অর্থ হচ্ছে ‘যুবক’ বা ‘যৌবন’। অর্থাৎ মানুষের দেহ ও মনের যৌবন ধরে রাখার কৌশল। এটা নিয়ে অনেকে অনেক রকম মতামত প্রকাশ করেছেন। কেউ বলেছেন আত্মা বা মন ও শরীরকে একত্র করার কৌশলকে ইয়োগা বা যোগ বলে।

ইয়োগা বা যোগব্যায়াম সাধারণত তিনটি প্রধান কাঠামোর ওপর নির্মিত হয়। যেমন ব্যায়াম, শ্বাস এবং ধ্যান। ব্যায়াম ও বিভিন্ন আসনের মাধ্যমে শরীরকে নিজের আয়ত্তে আনার কৌশল জানা যায় এবং বিভিন্ন রোগ থেকে নিজেকে মুক্ত রাখা যায়।

আমরা ইয়োগার শুধু ‘ব্যায়াম’ (আসন) নিয়ে আলোচনা করব।

যোগব্যায়ামে প্রতিটা আসনের কয়েকটা ধাপ বা লেভেল থাকে। আমরা প্রথম ধাপ ও সবচেয়ে সহজ কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ আসনগুলো সম্পর্কে জানানোর চেষ্টা করছি।

আজকের আসন পশ্চিমুত্থানাসন

পশ্চিমুত্থানাসন (ফরোয়ার্ড বেন্ডিং পোজ)

বসার নিয়ম

প্রথমে একটি ম্যাটে দুই পা লম্বা করে বসুন। দুই পায়ের পাতা একসাথে থাকবে এবং দুই হাত কোমরের দুইপাশে সমানভাবে রাখুন ও দুই হাতের তালু মাটিতে রাখুন। পিঠ ও মেরুদণ্ড সোজা করুন। এবার দুই হাত মাথার উপর তুলুন। এবার লম্বা করে শ্বাস নিন। ধীরে ধীরে শ্বাস ছাড়তে ছাড়তে হাত ও মাথা নামিয়ে আনুন। হাত দিয়ে পায়ের আঙুল ধরুন ও মাথা হাঁটুতে ঠেকাতে চেষ্টা করুন। হাতের কনুই মাটিতে লাগানোর চেষ্টা করুন। শ্বাস প্রশ্বাস স্বাভাবিক রাখুন। এভাবে ২-২০ মিনিট অপেক্ষা করুন (যতক্ষণ আপনি পারবেন)। এবার আবার লম্বা শ্বাস নিন এবং ধীরে ধীরে আগের অবস্থানে চলে আসুন। এবার দুই পা ফাঁক করে হাত পেছনে রেখে চোখ বন্ধ করে আরাম করুন। স্বাভাবিক শ্বাস নিন। ১-২ মিনিট আরাম করুন। তারপর আবার পশ্চিমুত্থানাসনে যান। এভাবে ৩-৪ রাউন্ড করুন।

উপকারিতা

. এই আসনে বসলে মানসিক চাপ কমে যায়।

. বদমেজাজ ও রাগ কমাতে সাহায্য করে।

. মনের অস্থিরতা কমাতে সাহায্য করে।

. মেরুদণ্ডের প্রসারিত ও নমনীয়তা বাড়ায়।

. হজমশক্তি বাড়ায় ও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে।

. দেহের উচ্চতা বাড়াতে সাহায্য করে।

. যৌনশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে।

. নারীদের মাসিক চলাকালীন তলপেটের ব্যাথা সারাতে সাহায্য করে।

. মাসিকের চক্র ঠিক রাখতে সাহায্য করে।

. প্রসবের পর নারীদের যে সব সমস্যা হয় তা সারাতে সাহায্য করে ।

. যারা আলসারের সমস্যায় ভুগছেন তাদের জন্য এ আসন অনেক উপকারি।

 সতর্কতা

. গর্ভাবস্থায় এই আসন করা যাবে না। কিন্তু প্রসবের পর এই আসন করলে অনেক সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।

. যারা পিঠের ব্যাথা ও মেরুদণ্ডের সমস্যায় ভুগছেন তারা সাবধানে করুন। সমস্যা বেশি থাকলে না করাই ভালো। করতে চাইলে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে নিন।

. মাসিক চলাকালীন করা যাবে না। কিন্তু মাসিকের পর করলে অনেক উপকার পাওয়া যায়।

. যারা নিতম্বের ব্যাথায় ভুগছেন তারা এই আসন এড়িয়ে চলুন।

. যাদের হাঁপানি আছে তারা এই আসন এড়িয়ে চলুন।

প্রতিদিন নতুন নতুন ইয়োগা আসন ও আসনের উপকারিতা সম্পর্কে জানার জন্য পরিবর্তন ডটকমের সঙ্গেই থাকুন।

ছবি. ইন্টারনেট

তথ্য প্রদান. এলিজা আক্তার রুপা, ইয়োগা প্রশিক্ষক, হারমনি ইয়োগা সেন্টার

Share.

Leave A Reply