বাসাটাকে নতুন করে সাজিয়ে তুলুন ৪ উপায়ে

0

মাঝে মধ্যেই আমাদের বাসার ভেতরটা নতুন করে সাজানো দরকার। পুরনোগুলো বিক্রি করে নতুন করে কেনা যায়। আবার ভেতরের আসবাব ও অন্যান্য জিনিসপত্র নতুন আঙ্গিকে গোছালেও পরিবর্তন আসে। এটা আসলে ইন্টেরিয়র ডিজাইনের একটি অংশ। নতুন ভাব যেমন আসবে, তেমনি তা রোমাঞ্চকর অনুভূতি দেবে। এ কাজে পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

১. শোবার ঘর : একটি মনোরম শোবার ঘর সাজাতেই মানুষ সবচেয়ে বেশি বুদ্ধি ও অর্থ খরচ করে। ভারতের একটি হোম ডেকর স্টোরের মালিক পুরভি পারিখ জানান, প্রতিনিয়ত বাসা-বাড়ির ইন্টেরিয়রের ধারণা বদলে যাচ্ছে। এর সঙ্গে তাল মেলাতেও একই জিনিসপত্র নতুন করে সাজান। নতুন কিছু কিনলে আধুনিক ধারণাটা হচ্ছে ‘কমেই বেশি কিছু’। খুব কম স্থান দখল করে এবং দেখতে চোখের আরাম দেয় এমন আসবাব ব্যবহার করা উচিত। একটি খোলামেলা তাক ব্যবহার করতে পারেন পছন্দের গেজেটগুলো রাখার জন্য। কারুকার্যখচিত পাটের ঝুলন্ত জালি ব্যবহার করে সৌন্দর্য বৃদ্ধির সঙ্গে বিভিন্ন কাজ হয় বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞ হার্দেশ চাওলা। এর সঙ্গে মানানসই ঝুলন্ত লাইটিং এবং হালকা আসবাব ঘরের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতে পারে। শোবার ঘরে শান্তি এনে দেয় এমন কিছু ছবি রাখতে পারলে সৌন্দর্য বহুগুণ বাড়িয়ে দেবে।

২. বিশেষ আসবাব : অনেক দামি আসবাবের কথা বলা হচ্ছে না। পুরনো বা নতুন ধাঁচের আসবাব পছন্দ করে থাকতে পারেন। আপনার মনের ইচ্ছা পূরণ করতে অনেক আসবাবই রয়েছে বাজারে। আধুনিক ট্রেন্ড হলো স্থান বাঁচিয়ে হালকা-পাতলা আসবাব থাকবে যাতে রয়েছে নান্দনিকতার ছোঁয়া। এ ধরনের আসবাব তৈরি হয় জায়গা বাঁচানোর মতো ডিজাইনে। পুরনো ধাঁচের আসবাবও দারুণ আবেদন রাখে। এগুলো সারাজীবনের জন্য ফ্যাশনেবল বলে জানান আরেক শীর্ষস্থানীয় ফার্নিচার ব্র্যান্ডের কর্তা নাভিন কানোদিয়া। বাক্সের ডিজাইনের কম উচ্চতার আসবাবগুলো আবারো ফিরে এসেছে। এগুলো বেশ বিলাসীদের জন্য প্রযোজ্য।

৩. স্বপ্নের রান্নাঘর : কারো রান্নাঘর কখনো এলোমেলো থাকে না এমনটা চিন্তাই করা যায় না। রান্নাঘরের গোছানো ভাব আনতে পারে কিচেন ক্যাবিনেট। এগুলো দারুণ কাজেরও বটে। ডিজিটাল ক্যাবিনেট আধুনিক ট্রেন্ড। বোতাম চাপলেই স্বয়ংক্রিয়ভাবে খুলবে ও বন্ধ হবে। এ ছাড়া দেখতে সুন্দর কাঠের ক্যাবিনেট রান্নাঘরটাকে অদ্ভুত সুন্দর করে দেবে।

৪. অন্যান্য যন্ত্রপাতি : রান্নার যন্ত্রপাতিগুলো দেখতে সুন্দর হলে রান্নাঘরের সৌন্দর্য বেড়ে যাবে। চুলাটি আধুনিক মডেলের কিনুন। এয়ার ফ্রায়ার, ত্রি ইন ওয়ান গ্যাস ওভেন, সিরামিক হট প্লেট ইত্যাদি সুবিধাসহ কিনতে পারেন। ডিজিটাল চুলা হলে তাদের আঙুলের স্পর্শে কাজ করা অনেক উপভোগ্য হয়ে উঠবে। 

Share.

Leave A Reply