ক্যারিয়ার ভাবনা, জীবনের যে ৫ টি শিক্ষা যতো দ্রুত সম্ভব শিখে নেয়া উচিত সবার।

0

আপনি যদি বারবার জীবনে ভুলই করে যেতে থাকেন তাহলে তা থেকেও কিছু জিনিস আপনার শেখার প্রয়োজন আছে। কারণ সফলতার চাইতে বেশি শিক্ষা পাওয়া যায় বিফলতার মাধ্যমে। যদি আপনার ভুল কোন স্থানে হচ্ছে তা বুঝে উঠতে না পারেন তাহলে জীবনের বিফলতাগুলোকে বোঝার চেষ্টা করুন এবং সেখান থেকে শিক্ষা গ্রহণের চেষ্টা করুন। আপনি যতো দ্রুত তা শিখে নিতে পারবেন ততোই আপনার জন্য তা ভালো হবে।

১) নিজের উপর আস্থা রেখে চলুন

সবচাইতে বড় শিক্ষা হচ্ছে নিজের উপর আস্থা রাখা, কারণ আপনার নিজের ভেতর থেকে যে চিন্তা আসে তা অনেকাংশেই সঠিক। যখন কোনো একটি ব্যাপার প্রাথমিকভাবে দেখেই সঠিক মনে না হয় তখন অবশ্যই তার পেছনে কারণ থাকে। নিজের উপর আস্থা রেখে, বিশ্বাস ধরে রেখে খুঁজে বের করা উচিত কেনো এমনটি মনে হচ্ছে। আপনি যতোটা ভাবছেন তার থেকেও বেশি কিছু শিখতে পারবেন। তাই নিজের উপর ভরসা রেখে নিজেকে বিশ্বাস করেই পথ চলুন।

২) নিজেকে সময় দিন

আমরা তখনই অনেক বেশি ভুল করি যখন আমরা দ্রুত কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহন করে থাকি। বিশেষ করে যখন তা আলোচনা সাপেক্ষে নেয়া উচিত। যখন দেখবেন এমন কেউ আপনাকে কোনো বিষয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে চাপ দিচ্ছেন, তা সে যে কারণেই হোক না কেন, সতর্ক হয়ে যান। কারণ আপনি বিপদে পড়তে পারেন। ভালো সিদ্ধান্ত নিতে অবশ্যই সময়ের প্রয়োজন রয়েছে, চিন্তাভাবনার প্রয়োজন রয়েছে। তাই নিজেকে সময় দিন, সিদ্ধান্ত গ্রহন করার আগে সময় নিন।

৩) ভুল মানুষের পেছনে সময় নষ্ট করা উচিত নয়

যে মানুষটি আপনার বুদ্ধিমত্তা এবং আপনার কাজের মূল্যায়ন করতে পারবে তার পেছনে আপনি সময় ব্যয় করে ফলাফল আসা করতে পারেন। কিন্তু যার আপনার কাজের ধরণ এবং কাজ সম্পর্কে কোনো ধারনাই নেই তাকে বুঝিয়ে, তার পেছনে সময় ব্যয় করার কোনো অর্থ হয় না। তাই ভুল মানুষের পেছনে সময় নষ্ট করবেন না। সময় অনেক বেশি মূল্যবান একটি জিনিস।

৪) কিছু জিনিস কখনোই হবার নয়, যতো চেষ্টাই করুন না কেন

এই জিনিসটি শিখে নিলে জীবনটা অনেক বেশি সুখের হবে। কারণ কোনো জিনিস যখন না হয় তখন নিশ্চয়ই তার পেছনে অন্য কোনো কারণ থাকে, আপনি শত চেষ্টা করলেও আপনার পরিশ্রম সেখানে বৃথা যাবে। শুধুমাত্র আপনার ইচ্ছার জোরে সবকিছু হবে না। কিছু জিনিস যা কখনোই হওয়ার নয় তা হবেই না আপনার শত চেষ্টাতেও। এই বিষয়টি বুঝে উঠার চেষ্টা করুন এবং সেসকল জিনিস যেতে দিন। এটা আপনার ভালোর জন্যই হবে।

৫) কথা বলুন

যোগাযোগের অসামঞ্জস্যতা অনেক সময় অনেক বড় ধরণের সমস্যা তৈরি করে ফেলে। খুব সহজেই সামান্য ভুল বোঝাবোঝি অনেক বড় আকার ধারণ করে। তাই কথা বলে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করুন। এবং তা অবশ্যই কথা বলে। টেক্সট বা ইমেইলের মাধ্যমে নয়। সামনাসামনি বা ফোনে কথা বলে নিন। নতুবা আপনার অনেক বড় সুযোগ হাতছাড়া হয়ে যেতে পারে জীবনে।

Share.

Leave A Reply