ইসলাম কি বলছে, পায়ে মেহেদী ব্যবহার করা যাবে কি?

0

মানুষের দেহ গঠন ও অবয়ব সুন্দর সৃষ্টি। তবুও মানুষেরা আরো সাজতে চায়। রাঙাতে চায় শরীর ও মন। আমাদের নারীরা সাজতে বেশি আগ্রহী। সাজের ধারাবাহিকতায় নারীরা হাতে-পায়ে মেহেদী ব্যবহার করেন। হাতে মেহদী ব্যবহারে স্বাচ্ছন্দবোধ করলেও; অনেকের পায়ে ব্যবহারে নানা প্রশ্ন। নানি-দাদিদের মুখে তো স্পষ্ট ফতোয়া শুনেছি, পায়ে মেহেদী ব্যবহার জায়েজ নেই। বেয়াদবি! কেন? নবীজি দাঁড়িতে মেহেদী ব্যবহার করেছেন। যে মেহেদী নবীজির দাঁড়িতে লেগেছে তা কখনও মানুষের পায়ে লাগতে পারে না।

 যুক্তি যত চমৎকার উত্তর ততই সোজা! নবীজির দাঁড়িতে তেল ব্যবহার করেছে! পানিও ব্যবহার করেছেন! তাই বলে পানি ও তেল আমরা পায়ে ব্যবহার করি না? সুতরাং পায়ে মেহেদী ব্যবহারে বাধা কোথায়? বিখ্যাত ফতোয়গ্রন্থ রদ্দুল মুখতারে আছে, নারীদের জন্য হাতে ও পায়ে মেহেদী লাগানো মুস্তাহাব। আবু দাউদ শরিফের ৪১৬৪ নাম্বার হাদিসে আছে, একজন নারী হজরত আয়েশা রা.-এর কাছে মেহেদী লাগানো বিষয়ে জিজ্ঞাসা করলেন। উত্তরে হজরত আয়েশা রা. বলেন, নারীদের মেহেদী ব্যবহারে মানা নেই। তবে রাসুল সা. মেহেদীর ঘ্রাণ অপছন্দ করতেন। ফেকাহর বিভিন্নগ্রন্থে নারীদের হাতে পায়ে মেহেদীর ব্যবহারকে উৎসাহিতও করেছে। তবে পুরুষ শুধু চিকিৎসার জন্য মেহেদী ব্যবহার করতে পারবে। না হয় হাতে পায়ে কোথাও ব্যবহার করতে পারবে না। খুলাসাতুল ফাতাওয়া ৪/৩৭৩, আলবাহরুর রায়েক ৮/১৮৩, রদ্দুল মুহতার ৬/৩৬২, ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১৮/১০৯

বিয়ের সময়ও কি পুরুষরা মেহেদী ব্যবহার করতে পারবে না? যাওয়াহিরুল ফিকহ গ্রন্থে আছে, পুরুষরা বিয়ের সময়ও মেহেদী লাগতে পারবে না। সাজ-সজ্জার উদ্যেশ্যে তারা কখনও হাতে-পায়ে মেহেদী লাগাতে পারবে না। কারণ মেহেদী এক ধরনের রঙ। আর পুরুষদের জন্য রঙ ব্যবহার করা নিষিদ্ধ। হজরত রাসুল সা. বলেনÑ জেনে রাখো, পুরুষরা এমন সুগন্ধ ব্যবহার করবে যাতে সুগন্ধি আছে রং নেই। বিপরীতে নারীরা এমন সুগন্ধী ব্যবহার করবে, যাতে রং আছে সুগন্ধি কম! তিরমিজি ২৭৮৭, মিশকাত ৪৪৪৩)। এ ছাড়া মহানবী সা. পুরুষদের জন্য রঙ থাকার কারণে জাফরানের সুগন্ধি ব্যবহার করতেও নিষেধ করেছেন। বুখারি ৫৮৪৬, মুসলিম ২১০১, মিশকাত ৪৪৩৪

তবে চিকিৎসার প্রয়োজনে যেকোনো স্থানে মেহেদী ব্যবহার করা জায়েজ আছে। তিরমিজি ২০৫৪, মাথার চুল ও দাঁড়িতে মেহেদী ব্যবহার করা উত্তম। আবুদাউদ, তিরমিজি, মিশকাত হা/৪৪৫১

Share.

Leave A Reply