সকালে বা বিকালের চায়ের নাস্তায় গ্রাম বাংলার মজাদার নারিকেল ইটা পিঠা।

0

প্রয়োজনীয় উপকরন

– একটা মাঝারি সাইজের নারিকেল (কুরানো)
– পরিমান মত চিনি (আমরা চিনি কম পছন্দ করি বলে কম দিয়েছি, হাফ কাপ)
– দেড় কাপ ময়দা
– এক কাপ চালের গুড়া
– তেল (সামান্য কাইতে এবং বাকী টুকু পিঠা ভাঁজার জন্য)
– পানি (পরিমান মত)

প্রনালী


প্রথমে নারিকেল এবং চিনি নিয়ে ভাল করে মাখিয়ে মিশাতে হবে।


মিশানো খুব ভাল হতেই হবে।


এবার চালের গুড়া ও ময়দা দিয়ে দিন এবং মাখাতে থাকুন। কিছু পানি লাগবে, আস্তে আস্তে দিন এবং মাখুন।


পিঠার ময়ান বা কাই যত ভাল মাখানো/ মিহীন হয়, পিঠা তত ভাল হয়।


এই হচ্ছে পিঠার কাই/ময়ান।


এবার ময়ান থেকে এক গোল্লা নিয়ে রুটি বেলুন।


এভাবে ডিজাইন করে কাটুন। গ্রামে পিঠা সাধারনত বাঁশের কঞ্চি দিয়ে কাটা হয়, শহরে সেটা পাব কোথায়, তাই আমি ছুরি দিয়েই কাজ চালিয়েছি। পিঠা কাটার জন্য অবশ্য আলাদা কাটার আছে, সেটা সময়ে খুঁজে পাওয়া যায় না!


হালকা একটা ডিজাইন দেয়ার চেষ্টা। প্লেইন না রেখে! এটা আবশ্য আমার চাচীমা আমাকে বলেছিলেন এবং আমি চেষ্টা করেছি।


এবার তেল গরম করে ভেঁজে নেয়ার পালা। (যে কোন কিছু ভালতে সাবধানে, শিশুদের এই কাজ কিছুতেই করতে দেবেন না।)


কড়া ভাঁজা না হালকা, এটা আপনি নিজে পছন্দ করতে পারেন।


ব্যস পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত।

সেইম ময়ান দিয়ে আমি আর একটা ডিজাইনের পিঠা বানিয়েছিলাম এবং এটাই সবাই বেশি পছন্দ করেছে! আপনি চাইলে আরো কত কি ডিজাইন করতে পারেন।


রুটি লম্বা করে কেটে গোল করে ভাঁজ দিয়ে তেলে ভাঁজা। ব্যস।


ভিতরের রসালো অংশটার যেমন স্বাদ, তেমন দেখতে!


এবার বলুন, কোনটা খাবেন। আপনি পছন্দ করে নিন।

Share.

Leave A Reply