বাসর ঘরেই যুবকের মৃত্যু, মানতে নারায পরিবার, মৃতদেহে প্রাণ ফেরাতে দিনভর চলছে ঝাড়ফুক ও মন্ত্রপাঠ !

0

ঠাকুরগায়ের ঢোলারহাটে বাসর ঘরে প্রদীপ নামে সদ্যবিবাহিত এক যুবকের আকস্মিক মৃত্যু হয়েছে। সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তার মৃত্যু নিশ্চিত করেছেন । তবে প্রদীপ মৃত এ কথা মানতে নারায তার পরিবার ও স্থানীয় সনাতনধর্মালম্বীরা । তাদের বিশ্বাসমতে মনসাদেবীর অভিশাপে প্রদীপ ‘অচেতন’  আছেন। তাই গ্রামের ওঝা বৈদ্যদের আশ্বাসে প্রাণ ফিরে পাবার আশায় দিনভর চলছে ঝাঁড়ফুঁক, পুজা ও মন্ত্র পাঠ ।

খবর পেয়ে আশেপাশের এলাকা থেকে হাজারো মানুষ ঢোলারহাট সেই বাড়িতে এই ঘটনা স্বচক্ষে দেখতে ছুটে যান। কৌতুহল নিয়েই ঠাকুরগাঁও সদর থেকে সেই বাড়িতে ছুটে যান বেশ ক’জন সাংবাদিক।  ঘটনাস্থল থেকেই ঠাকুরগাঁও প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারন সম্পাদক বদরুল ইসলাম বিপ্লব সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানালেন ”লাশের শৈষকৃত্য সম্পাদন না করে চলছে টাটক নাটক। লাশের পাশেই মা মনসা দেবীকে তুষ্ট করতে নববধূ মৃত বরের জন্য করে চলেছে বিলাপ। তাদের বিশ্বাস প্রদীপের অচেতন দেহে ফিরে আসবে প্রাণ” ।

 পরিবার ও স্থানীয়দের বরাত দিয়ে সাংবাদিক বিপ্লব সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান,  বিয়ের সব আয়োজন সেরে শুক্রবার ভোররাতে নতুন বধুকে নিয়ে বাসর ঘরে গিয়েছিলো প্রদীপ নামের ঐ  যুবক। পরিবারের দেয়া তথ্যমতে সবকিছুই ছিলো স্বাভাবিক। বাইরে তখনো পরিবার আত্মিয়-স্বজন আর প্রতিবেশিদের মধ্যে নতুন বিয়ের আমেজ। সকাল ৯ টা থেকে সাড়ে  ৯টা নাগাদ নববধু ঘুম ভাঙ্গাতে চেষ্টা করে সদ্যবিবাহিত স্বামীর। অনেক ডেকেও সাড়া না পেয়ে কিছুটা ভড়কে যায় নববধু। তড়িঘড়ি দরোজা খুলে চিতকার করে ডাকে  শ্বশুরবাড়ির লোকজনকে।

প্রাথমিকভাবে স্থানীয় চিকিতসকের পরামর্শে প্রদীপের অচেতন দেহ সকাল সাড়ে দশটা নাগাদ নিয়ে যাওয়া হয় ঠাকুরগাও আধুনিক সদর হাসপাতালে। সেখানে কর্তব্যরত চিকিতসক জানিয়ে দেন ‘যুবক মৃত’। কমপক্ষে তিন-চারঘন্টা আগেই হার্ট এটাকে তার মৃত্যু হয়েছে । তবে চিকিতসকের এমন কথা মানতে নারাজ প্রদীপের পরিবার ও স্থানীয় সনাতন ধর্মীরা। দুপুর ১২ টা নাগাদ লাশ নিয়ে আসা হয় ঠাকুরগাও- রুহিয়া রোডের মাঝামাঝি ঢোলারহাট নামক এলাকায় প্রদীপের বাড়িতে ।

সেখানকার পরিস্থিতি ও পরিবারের সাথে কথা বলে বিপ্লব জানান, ” পরিবার ও প্রতিবেশীদের গভীর বিশ্বাস ‘মা মনসাকে সন্তুষ্ট না করার শাপেই ঘটেছে এমন ঘটনা’ তবে এখনো যদি মা মনসাকে তুস্ট করতে পারা যায় তবেই ‘অচেতন’ (পরিবারের ভাষ্যমতে প্রদীপ মৃত নয়, অচেতন ) প্রদীপের শরীরে ফিরে আসবে প্রাণ!

thakurgaon-somoyerkonthosor

গ্রামের মন্দিরের পুরোহিত, ঠাকুর, ওঝা বৈদ্যদের এমন আশ্বাসে প্রদীপের নিস্প্রান দেহে প্রাণ ফিরে পাবার আশায় শুক্রবার দুপুর সাড়ে বারোটা থেকে এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত (বিকেল ৫ টা পর্যন্ত ) চলছে মনসাদেবীর পুজাসহ  নানারকম  মন্ত্রপাঠ ও ঝাঁড়ফুঁক।

এখন পর্যন্ত চলছে নানা যজ্ঞ। কৌতুহলী হাজারো মানুষও রয়েছেন  সেখানে। এমনকি ঠাকুর, ওঝা বৈদ্যদের কথায় ‘বিশ্বাস’ করছেন অনেকেই।

শেষ পর্যন্ত মৃত প্রদীপ সত্যিই কি বেঁচে উঠবে? তার নিস্প্রান দেহে প্রাণ ফিরে এসে কি সৃষ্টি হবে অবিশ্বাস্য কোন চমক? তা দেখার অপেক্ষায় গভীর আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষায় রয়েছেন কৌতুহলী মানুষেরা।

Share.

Leave A Reply